December 4, 2022, 6:27 am

স্বাগতম:
আমার ব্লগে আপনাকে স্বাগতম। সামাজিক আচরণ করুন, সকল-কে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখুন।

ইন্ডিয়ান ভিসা করার নিয়ম

পূর্বের পর্বের লিখেছিলাম কি ভাবে পাসপোর্ট করবেন। এবার লিখছি কি ভাবে ভিসা করবেন।

আসলে আপনি কিসের ভিসা চান তারপর উপর নির্ভর করে ভিসা আবেদন করতে হবে। যেমন- মেডিকেল ভিসা, টুরিস্ট ভিসা, স্টুডেন্ট ভিসা, এটেনডেন্স ভিসা, ট্রানজিট ভিসা, বিজনেস ভিসা ইত্যাদি।

প্রথমেই আলোচনা করেন নেই প্রয়োজনী কাগজ কি কি লাগবে।

সাধারণত ব্রাঞ্চ অফিস মানে ঢাকা বাদে বাইরের জেলাগুলো অফিসগুলোতে ভিসা করতে গেলে নিম্নোক্ত কাগজপত্রাদি লাগে। মুল পাসপোর্ট, অনলাইনে পুরণকৃত ফর্ম, ২ইঞ্চি বাই ২ইঞ্চি সাইজের ছবি(সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড হতে হবে), ভোটার আইডি কার্ড, জন্মসনদ, মূলনাগরিকত্ব সনদ, বিদ্যুৎ বিলের কপি অরিজিনাল, ব্যাংক স্টেটমেন্ট ৬মাসের(মিনিমাম ৩০হাজার টাকা থাকতে হবে), মূল চেক বই, পেষায়-কৃষক হলে জমির পর্চা, ব্যবসায়ী হলে ট্রেড লাইসেন্স, সরকারী চাকুরীজীবী হলে জিও, বেসরকারী চাকুরীজীবী হলে অবমুক্তকরণ অনুমতিপত্র, মেডিকেল ভিসার জন্য দেশের চিকিৎসা হওয়ার সকল প্রেসক্রিপ্টশন ও টেস্টের মুল কপি ও একসেট ফটোকপি পুরাতন পাসপোর্ট থাকলে সাথে নিয়ে যাবেন। মনে রাখবেন ফর্ম জমা দেয়ার পর আপনাকে ভিসা অফিস হতে ফোন দিয়ে কোনরূপ আর্থিক লেনদেনের কথা বলবেন না। তাই দালাল হতে সাবধান থাকবেন। ভিসা পেতে সময় লাগবে মাত্র ১৫দিন।

ঢাকায় ফর্ম জমা দিতে চাইলে এতো ঝামেলা নেই। শুধু অনলাইন ফর্ম পুরণ করে, ছবি যোগ করবেন, ব্যাংকস্টেটমেন্ট দেবেন, পেশাগত কাগজ ও মেডিকেল ভিসার জন্য দেশের চিকিৎসা হওয়ার সকল প্রেসক্রিপ্টশন ও টেস্টের মুল কপি ও একসেট ফটোকপি, পুরাতন পাসপোর্ট থাকলে সাথে নিয়ে যাবেন। এখানে ভিসা হতে সময় নেয় মাত্র ৫কার্যদিবস।

চলুন এবার ফর্ম পুরণে যাই। প্রথমে এই ওয়েব সাইটে গিয়ে https://indianvisa-bangladesh.nic.in/ ফর্ম পুরণ করতে হবে। ফর্মপুরণ জন্য ছবি আগে থেকে আপনার কম্পিউটারে স্ক্যান করে রাখতে হবে। ২ বাই ২ সাইজ। ফর্মপুরণের সময় অবশ্যই পাসপোর্ট নং, জন্মতারিখ, পিতামাতার নাম, স্ত্রীর নাম জন্মস্থান এগুলো বানান যেন ভুল না যায়। আর বাকি সব কিছু পুরণের ক্ষেত্রে ২/১টি বানান ভুল গেলেও কোন সমস্যা নেই। আপনার দেয়া তথ্য অনুযায়ী ফর্মপুরণ হয়ে গেলে সেগুলো পুনরায় ভাল ভাবে চেক করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন। এরপর ফর্মটি প্রিন্ট নেবেন। প্রিন্টকৃত ফর্মের BDG XXXXXX নম্বর ধরে UPAY, Citytouch, Abbank সহ বেশ কিছু মাধ্যমে টাকা জমা দিতে পারেন। যদি টাকা জমা দেয়ার মাধ্যম না পান তাহলে ভিসা অফিসের সামনে অনেককে পাবেন। তারা পেইড করে দেবে। এরপর উল্লিখিত কাগজ সংযুক্ত করে ভিসার জন্য পাসপোর্ট ও ফর্ম জমা দিন। কাজ শেষ।

আরেকটা কথা। ভিসা অফিসে ঢুকে আগে টোকেন নেবেন। সিরিয়াল আসলে সিরিয়াল অনুযায়ী যাবেন, তারপর জমা দেবেন। এরপর আপনাকে একটি স্লিপ ধরিয়ে দেবে। সেটা সাথে রাখবেন। মনে রাখবেন সেটি হারালে কি হবে তখন বুঝবেন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved 2020 msbabu.com