Warning: Creating default object from empty value in /home/msbabu/public_html/wp-content/themes/Newssmart/lib/ReduxCore/inc/class.redux_filesystem.php on line 29
দিনাজপুর হতে চিকিৎসার জন্য ভেলোর কিভাবে যাবো ?

June 19, 2024, 8:58 pm

স্বাগতম:
আমার ব্লগে আপনাকে স্বাগতম। সামাজিক আচরণ করুন, সকল-কে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখুন।

দিনাজপুর হতে চিকিৎসার জন্য ভেলোর কিভাবে যাবো ?

ইন্ডিয়া যাওয়ার আগে প্রথমেই পাসপোর্ট ও ভিসা নিশ্চিত করুন। তারপর ভ্রমন ট্যাক্স জমা দিয়ে তার রিসিভ কপি সাথে রাখুন। শুধুমাত্র বেনাপুল, গেদে, আগড়তলা(আখাউড়া) চেকপোষ্টের জন্য অনলাইনের পে করার ব্যবস্থা রয়েছে। বাকি সবগুলো চেকপোষ্টের টাকা ব্যাংকে গিয়ে জমা দিতে হয়। যে যে চেকপোষ্টের ল্যানপোর্ট কার্যকর রয়েছে সেগুলোতে ল্যান্ডপোর্ট চার্জ এর রিসিভ নেবেন। সেখানেই সোনালী ব্যাংকের বুথ রয়েছে সেখান থেকে নিতে পারেন। আগে ছিলো ৫৫টাকা।

১। প্রথমে হিলি যাওয়ার জন্য দুপুর ১২টার সময় ফূলবাড়ী বাসস্ট্যান্ড থেকে বাস পাবেন ভাড়া ১০০ হতে ১৩০টাকা।
২। হিলি বন্দর মোড়ে নেমে হেটে চেকপোষ্টে যাবেন। তারপর ইমিগ্রেশনের জন্য প্রথমেই হিলি স্থলবন্দর ইমিগ্রেশন সেন্টারে গিয়ে একটা দালাল ধরুন তারপর(দালাল ছাড়া ইমিগ্রেশন করতে গেলে দেরি হবে।) খরচ ১২০টাকা।
৩। এবার ইমিগ্রেশনে আপনার সিরিয়াল আসলে লাইন ধরে ছবি তুলে পাসপোর্ট নিজের হাতে নিন। তারপর কাস্টমসে উপস্থিত হয়ে আপনার লাগেজ ব্যাগেজ চেক করুন। তারা ক্লিয়ারেন্স দেয়ার পর পরেই দেশে কাজ শেষ।
৪। বিজিবি চেকপোষ্টে পাসপোর্ট দেখান। তারা এন্ট্রি করার পর আপনাকে ইন্ডিয়া ঢুকতে দেবে।

ইন্ডিয়াতে
১। প্রথমেই বিএসএফ এর এন্ট্রিবুথে গিয়ে পাসপোর্ট জমা দিন। তারা এন্ট্রি করে আপনাকে পাসপোর্ট দেবেন। তারপর ইন্ডিয়ান কাস্টমসে যাবেন। সেখানে বাংলাদেশের মত আপনার লাগেজ ব্যাগেজ চেক করুন। তারা ক্লিয়ারেন্স দেয়ার পর আপনাকে ইমিগ্রেশনের জন্য পাঠাবে। তবে হিলিতে দুদেশেই দালাল ছাড়া কাজ হয় না। তাই কাস্টমসে যাওয়ার আগে দালাল ধরে কাস্টমসে যাবেন। কাস্টমসে কম কিছু প্রশ্ন-কতটাকা নিয়েছেন, কোথায় যাবে, ডলার সাথে আছে কি না ইত্যাদি। দুটা টাকা দিলেই সব প্রশ্নের উত্তর তারাই দেবে। এর জন্য দালালের সাথে আগেই কথা বলে নেবেন।
২। এবার ইমিগ্রেশনে আপনার নাম ডাকা হলে আপনি গিয়ে ছবি তুলে পাসপোর্ট হাতে নিন। এবার কাজ শেষ, আপনি বৈধ ভাবে ইন্ডিয়া প্রবেশ করেছেন। একটা কথা সব সময় মাথায় রাখবেন। পাসপোর্ট কোন অবস্থাতে হারানো যাবে।

বালুরঘাট যাওয়া-

প্রথমে হিলি বন্দর স্থল থেকে একটা অটো নিয়ে বাস স্ট্যান্ড যাবেন। ভাড়া ১০টাকা জনপ্রতি। বাস স্ট্যান্ড যাওয়ার পর বালুরঘাট স্টেশনে যাবে এমন বাসে উঠবেন। মনে রাখবেন বালুরঘাট যাওয়ার বাস আর বালুরঘাট স্ট্যাশনে যাওয়ার বাস কিন্তু এক না। বার বার জিজ্ঞেস করে নেবেন এটা স্ট্যাশনে যাবে তো।

স্টেশনে পৌছার পর নির্ধারিত ট্রেনে নির্ধারিত সিটে উঠে পড়ুন। একবারে হাওড়া গিয়ে নামবেন। কোথাও নামার প্রয়োজন নেই। সকল খাবার মালদায় গেলে ট্রেনেই পাবেন।

হাওড়া স্টেশনে নামার পর অপেক্ষা করুন ১৭ থেকে ২৩ নং প্লাটফর্মে। কারণ দুরপাল্লার/দক্ষিন ভারতে সকল ট্রেন সেখান থেকে যায়। ট্রেন আসার আগে থেকে ডিসপ্লে বোর্ডে লক্ষ রাখুন ট্রেন কোন প্লাটফর্মে আসবে এবং কয়টায় আসবে। ট্রেন আসলে উঠে পড়ুন।

হাওড়া থেকে ভেলোর যাত্রা কালে অনেক স্টেশন রাস্তায় পড়বে, আপনি তামিল নাড়ু রাজ্যের কাঠপডি স্টেশনে নামবেন। জানালাদিয়ে বাইরের পরিবেশ উপভোগ করুন আর খাবার ট্রেনেই পাবেন। লোকাল ও ট্রেনের সব। ভাত সবজি মেল-১২০টাকা, চিকেন রাইজ-১৬০টাকা, এছাড়া ট্রেনে বিভিন্ন স্টেশনে পাবেন ডিমবিরিয়ানী ৫০/৭০টাকা। ভপুনেশ্বরের পাবেন মাছ ভাত, ভিসাকাপাটনামে পাবেন ইডলি, ঢোসা, সামবাড়, উপমা ইত্যাদি। কোথাও কোথাও সমুচা পাবেন।

কাঠপডি আসলে নেমে পড়বেন। স্টেশন থেকে বের হয়ে টেম্পু/সিএনজি পাবেন। সেখান থেকে ভেলো ২৫০টাকা রিজার্ভ নিতে পারেন। অথবা স্টেশন থেকে বের হয়ে মেইন রোড়ে দাড়ালে বাস পাবেন ১০টাকা করে জনপ্রতি, ভেলোরে নামিয়ে দেবে, সিএমসি গেটে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved 2020 msbabu.com

Warning: call_user_func_array() expects parameter 1 to be a valid callback, function 'wccp_main_settings' not found or invalid function name in /home/msbabu/public_html/wp-includes/class-wp-hook.php on line 324

Warning: call_user_func_array() expects parameter 1 to be a valid callback, function 'right_click_premium_settings' not found or invalid function name in /home/msbabu/public_html/wp-includes/class-wp-hook.php on line 324

Warning: call_user_func_array() expects parameter 1 to be a valid callback, function 'wccp_css_settings' not found or invalid function name in /home/msbabu/public_html/wp-includes/class-wp-hook.php on line 324